,

টাইগারদের জয়ের স্বপ্ন বাঁচিয়ে রেখেছে বোলাররা

লাহোরের গাদ্দাফি স্টেডিয়ামে বাংলাদেশের দেওয়া ১৪২ রানের লক্ষ্যে ব্যাট করছে স্বাগতিক পাকিস্তান। ম্যাচের শুরুতেই পাকিস্তানের দুই উইকেট তুলে নিয়ে স্বাগতিকদের চাপে ফেলে বাংলাদেশের বোলাররা। এরপর পাকিস্তানে আরও এক উইকেট তুলে নিয়ে জয়ের স্বপ্ন বাঁচিয়ে রেখেছে টাইগাররা।

১৪২ রানের মাঝারি লক্ষ্য দিয়েছে বাংলাদেশ। তাই জিততে হলে বল হাতে খেলতে হবে দুর্দান্ত। প্রথম ওভারের দ্বিতীয় বলেই দলকে সাফল্য এনে দিয়ে জয়ের স্বপ্ন দেখাচ্ছেন শফিউল। তার বলে উইকেটরক্ষকের পেছনে ধরা পড়েন টি-টুয়েন্টির সেরা ব্যাটসম্যান বাবর আজম। তিনি আউট হন শূন্য রানে।

দ্বিতীয় উইকেট জুটিতে দলের হাল ধরেন অভিজ্ঞ হাফিজ ও অভিষিক্ত আহসান আলী। তবে এ জুটি ভয়ঙ্কর হওয়ার আগেই হাফিজকে সাজঘরে ফেরান মুস্তাফিজুর রহমান। তার বলে আমিনুল ইসলামকে ক্যাচ দেওয়ার আগে হাফিজ করেন ১৭ রান। এরপর আহসানীর সঙ্গে আবারও দলের হাল ধরেন শোয়েব মালিক। দলীয় ৮১ রানে আহসান আলীকে আউট করে দলকে তৃতীয় সাফল্য এনে দেন আমিনুল ইসলাম। আউট হওয়ার আগে এ ব্যাটসম্যান করেন ৩৬ রান।

শেষ খবর পাওয়া পর্যন্ত পাকিস্তানের সংগ্রহ ১৩.২ ওভারে ৩ উইকেটে ৯৪ রান। শোয়েব মালিক ৩৩ রান নিয়ে ক্রিজে আছেন, তার সঙ্গী ইফতিখার আহমেদ। জিততে পাকিস্তানের দরকার ৪০ বলে ৪৮ রান।

এর আগে, টস জিতে ব্যাট করতে নামে বাংলাদেশ। তামিম-নাঈম ওপেনিং জুটিতে ৭১ রান এনে দিলেও তাতে টি-টুয়েন্টি মেজাজ ছিল না। কারণ এ রান তুলতেই দুই ওপেনার ১১ ওভার ব্যাটিং করেছেন। ছোট ফরম্যাট বলে টি-টুয়েন্টিতে ম্যাচের নিয়ন্ত্রণ নিতে হয় শুরু থেকে। তবে একটু বেশি ঢিমেতালে ব্যাট করে টাইগার শিবির। এতে রান তোলার চাপ আসায় দ্রুত উইকেট হারায় তারা।

রান আউটের ফাঁদে পড়ে ফিরে যান তামিম ইকবাল। ফেরত যাওয়ার আগে করেন ৩৪ বলে ৩৯ রান। এরপর জুটি বাঁধেন লিটন ও নাঈম। তবে লিটনও রান আউট হলে সে জুটি বড় হয়নি। পরের বলে নাঈমও ফেরেন ৪১ বলে ৩ বাউন্ডারি ও ২ ছক্কায় ৪৩ রান করে।

পাকিস্তানি পেস আক্রমণও ছিল চোখে পড়ার মতো। ম্যাচের শুরু থেকে শাহীন শাহ আফ্রিদি, হাসনাইন ও অভিষিক্ত হারিস রউফ দুর্দান্ত বোলিং করেন। আফিফকে আউট করে অভিষেক স্মরণীয় করলেন রউফ।











     এই বিভাগের আরও খবর

::::::: আর মাত্র বাকি :::::::

29দিন 00ঘন্টা 48মিনিট 46সেকেন্ড

পুরাতন খবর

সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি রবি
 
১০১১১২১৩১৪১৫১৬
১৭১৮১৯২০২১২২২৩
২৪২৫২৬২৭২৮২৯